সাবমেরিন চলবে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারিতে

সাবমেরিন চলবে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারিতে-bangla tech news

শুনতে অবাক লাগলেও কাজটি করে দেখালো জাপান। স্মার্টফোনের লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি এখন আর স্মার্টফোনে সীমাবদ্ধ নেই। সেটি পৌঁছে গেছে সমুদ্রের তলদেশ পর্যন্ত। এমনই এক প্রযুক্তি দেখিয়েছে জাপান। তারা তৈরি করেছে এমন এক সাবমেরিন যা চলবে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারির শক্তিতে। জাপান মিনিস্ট্রি অব ডিফেন্স সম্প্রতি জানিয়েছে জাপানের সাবমেরিন বা ডুবোজাহাজে একটি বড় ধরনের আপগ্রেড আসতে যাচ্ছে। তাদের নতুন সাবমেরিন 'টোরিয়ু' লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারিতে চলবে। 

লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারির শক্তিতে সাবমেরিন শব্দহীনভাবে আগের থেকে আরও দীর্ঘক্ষণ সমুদ্রের তলদেশে বিচরণ করতে পারবে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ের সাবমেরিন গুলোতে সাধারণত লেড অ্যাসিড ব্যবহার করা হতো। যার ওজন অনেক বেশি হলেও শক্তি ছিল অনেক কম। পরে শব্দহীনভাবে চলাচলের সুবিধার্থে সাবমেরিনে ব্যাটারি ব্যবহার শুরু হয়। এই ব্যাটারি গুলো চার্জ হতো অক্সিজেন চালিত ডিজেল ইঞ্জিনের মাধ্যমে। এই কারণে পানির উপরিপৃষ্ঠে খুবই ছোট স্নোরকেল, পেরিস্কোপ এবং এক্সহাউস্ট পোর্ট রাখা হতো। ফলে বিরোধী এন্টি সাবমেরিন কিংবা বিমানের রাডারের নজর এড়ানো কঠিন হয়ে পরতো।

তবে আধুনিক সাবমেরিন গুলো তাদের ব্যাটারি রিচার্জের জন্য ডিজেল ইঞ্জিনের পরিবর্তে একটি বায়ু স্বাধীন পরিচালন ব্যবস্থা ব্যবহার করে। এই প্রযুক্তি পানির নিচে সাবমেরিনের ভ্রমণের সময় অনেকখানি বাড়ালেও শব্দের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয় বহু গুণে। পূর্ববর্তী সবগুলো সাবমেরিনের সীমাবদ্ধতাকে জয় করা 'টোরিয়ু' তৈরি করেছে জাপানের কাউয়াসাকি হেভি ইন্ডাস্ট্রিস। লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি ওজনে অনেক হালকা এবং শক্তিশালী হওয়ায় দীর্ঘক্ষণ চলাচলে সক্ষম এই 'টোরিয়ু'। 

কিন্তু লিথিয়াম ব্যাটারি পুরোপুরি ঝুঁকিমুক্ত প্রযুক্তি নয়, কারণ পানির সংস্পর্শেও লিথিয়াম প্রজ্জলিত হয়। লিথিয়ামের আগুন ৩৬০০ ডিগ্রি পর্যন্ত উত্তপ্ত হতে পারে এবং হাইড্রোজেন গ্যাস নিঃসরণ করে। এই হাইড্রোজেন গ্যাসকে মার্কিন নেভি সাবমেরিন স্কোরপিয়ন ডোবার পেছনে মূলকারণ হিসেবে ধরা হয়। ঝুঁকি থাকার পরও এই লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারির সাবমেরিন টোরিয়ুকে ধরা হচ্ছে ইতিহাসের সবচাইতে শত্রু আক্রমণে মারাত্মক পারদর্শী ডুবোজাহাজ হিসেবে।

এ ধরনের আরো বিষয়সহ বিজ্ঞান, টেকনোলজি, কি ও কিভাবে?, রিভিউ, লাইফস্টাইল, টিপস অ্যান্ড ট্রিকস্‌, মুভি আপডেট সহ আরো বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে জানতে নিয়মিত www.ideaworldbd.com সাইটটি ভিজিট করুন। 

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পর্কিত আপনার যেকোনো প্রশ্ন ও মতামত জানাতে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিন অথবা আমাদের Contact Us পেজে জানাতে পারেন। আমাদের Facebook Page-এ লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ